Tuesday , 20 November 2018
আপডেট
Home » আপডেট নিউজ » শুরু হচ্ছে প্রাণের পৃষ্ঠপোষকতায় জাতীয় স্কুল ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ
শুরু হচ্ছে প্রাণের পৃষ্ঠপোষকতায় জাতীয় স্কুল ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ

শুরু হচ্ছে প্রাণের পৃষ্ঠপোষকতায় জাতীয় স্কুল ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : বেশ কয়েক বছর পর স্কুল ফুটবল আয়োজন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। এর আগে পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ইসলামী ব্যাংক থাকলেও এবার স্কুল ফুটবলের পালে হাওয়া দিতে এগিয়ে এসেছে শিল্প প্রতিষ্ঠান প্রাণ গ্রুপ।
মে মাসের প্রথম সপ্তাহে ৫৬টি জেলার স্কুল (দল বাড়তে পারে) নিয়ে শুরু হবে জাতীয় স্কুল ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ। যাকে ২০১৭-১৮ সালের টুর্নামেন্ট বলা হচ্ছে।
বৃহস্পতিবার বাফুফে ভবনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান বাফুফের সদস্য ও জাতীয় স্কুল ফুটবলের চেয়ারম্যান বিজন বড়ূয়া, ডেপুটি চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন জালু,এ সময় বাফুফের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবদুস সালাম মুর্শেদী,বাফুফে সাধারণ সম্পাদক মো. আবু নাইম সোহাগ,  প্রাণ ডেইরির অপারেশন জিএম রাজিব ইবনে ইসলাম এবং গুডলাক স্টেশনারির ব্র্যান্ড ম্যানেজার আহসানুজ্জামান খান উপস্থিত ছিলেন।
২০১২-১৩ সালে ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডের পৃষ্ঠপোষকতায় ৪৮০টি উপজেলা নিয়ে দেশব্যাপী আয়োজন করা হয়েছিল জাতীয় স্কুল ফুটবল টুর্নামেন্ট। এরপর ২০১৫ সালেও একবার চেষ্টা হয়েছিল তবে সফল হয়নি। দু’বছর পর আবার সেই স্কুল ফুটবল নিয়ে তোড়জোড় শুরু হয়েছে বাফুফেতে।
বাফুফের বর্ষপঞ্জির অন্যতম বিষয় স্কুল ফুটবল। কাজী সালাহউদ্দিনের তৃতীয় মেয়াদের দু’বছর পূর্ণ হচ্ছে ক’দিন পরেই। এ সময়ের মধ্যে স্কুল ফুটবল হয়নি। এবার মাত্র ৫৬ টি স্কুল অংশ নিচ্ছে আসন্ন টুর্নামেন্টে। বাফুফের বিগত স্কুল ফুটবলের টুর্নামেন্টগুলোতে শতাধিকের উপর স্কুল অংশ নিয়েছিল।
স্কুল সংখ্যা কম হওয়া নিয়ে বাফুফে সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ জানান, শিক্ষা মন্ত্রণালয় স্কুল ও মাদরাসা টুর্নামেন্ট করে প্রতি বছর। সেই টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন দল নিয়ে আমরা স্কুল ফুটবল করার পরিকল্পনা করেছি।
বিজন বড়ূয়া জানান, স্কুল ফুটবল থেকে অনেক ভালো খেলোয়াড় উঠে আসবে এরাই সামনে জাতীয় দলে খেলবে।
প্রাণের আরেকটি প্রতিষ্ঠান গুডলাক স্টেশনারি টুর্নামেন্টের পাওয়ার্ড বাই হিসেবে থাকছে। জানা গেছে, ফিফার ফরোয়ার্ড প্রোগ্রামের নব্বই হাজার ডলারও রয়েছে এ টুর্নামেন্টে। মে মাসে শুরু হওয়া এই টুর্নামেন্টের ফাইনাল জুলাইয়ে করার পরিকল্পনা রয়েছে বাফুফের।
২০১৮ সালের শেষভাগে আরেকটি স্কুল ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজন করে আগের আসরের অভাবপূরণ করবে বাফুফে। ঢাকা, সিলেট, রাজশাহী, সিলেট, সাতক্ষীরা, রংপুর, বরিশালসহ আট ভেন্যুতে টুর্নামেন্ট হবে। আট ভেন্যুর আট চ্যাম্পিয়ন ঢাকায় চূড়ান্ত পর্বে খেলবে।
উল্লেখ্য, জেলা পর্যায় থেকে ফুটবলার তুলে আনার ক্ষেত্রে জোর দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। সেই লক্ষে দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো জাতীয় বাজেটে রাখা হয়েছে জেলা ফুটবলের জন্য বরাদ্দ। সম্প্রতি জেলা ফুটবল সংগঠনের জন্য বছরে তিন লাখ টাকা সরকারি বরাদ্দের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এমনকি এক লাখ টাকা চেক নগদ দেয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*